Women Households,

বৃহস্পতিবার, ১ আগস্ট, ২০১৩

ভ্যানিলা আইসক্রিম

ভ্যানিলা আইসক্রিম
উপকরনঃ
১। দুধ ২ লিটার                      ৪। কনডেন্সড মিল্ক ১ কাপ
২। ভ্যানিলা ফ্লেবার  ১ চামচ    ৫। চিনি ১ কাপ
৩। বাটার ১০০ গ্রাম
প্রনালিঃ
অল্প আঁচে দুধ গরম করে ফুটিয়ে ঘন করে নিন। বাটার ফ্রিজ থেকে ১ ঘণ্টা আগে বাহির করে রাখবেন। তারপর ঠাণ্ডা দুধের সাথে বাটার ,ভ্যানিলা ফ্লেবার, কনডেন্সড মিল্ক , চিনি পছন্দ
মত বেশিও দিতে পারেন, মিক্সারে সব উপকরন এক সাথে  ভালভাবে মিক্স করে নিন।
টিফিন বক্স টি ফ্রিজে ৫ মিনিট ঠাণ্ডা করে নিন। তারপর মিশ্রণটি পাত্রে ঢালুন এবং ফ্রিজে
রেখে দিন। ১ ঘণ্টা পর ফ্রিজ থেকে বের করে আবার মিক্সারে মিক্স করুন। এর পর আবার
পাত্রে ঢেলে  ১ দিন ফ্রিজে রেখে দিন , জমাট বাঁধার জন্য।
হয়ে গেল মজাদার ভ্যানিলা আইসক্রিম।


রবিবার, ২১ জুলাই, ২০১৩

ধনেপাতার চাটনি

ধনেপাতার চাটনি
উপকরনঃ
১।ধনেপাতা বাটা ১ কাপ        ৪।লবন আধা চা চামচ 
২।কাঁচামরিচ বাটা ১ টেবিল চামচ  ৫।রসুন বাটা ১ চা চামচ
৩।লেবুর রস ২ টেবিল চামচ
প্রনালিঃ
সব উপকরন মেখে চাটনি তৈরি করতে হবে।  

শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৩

মুখের কাল দাগ দূর করতে

মুখের কাল দাগ দূর করতে
তুলসি পাতার রস ও লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে দুই বেলা নিয়মিত
মুখে লাগালে কাল দাগ দূর হয়ে যাবে।

বহেরা

বহেরা
১। শ্বেতী রোগী বহেরার বিচির শাঁসের তেল নিয়মিত লাগালে গায়ের
   রং স্বাভাবিক হবে।
২। পানির সাথে বহেরার ফলের চূর্ণ মিশিয়ে পান করলে আমাশয় ভালো
   হয়ে যাবে।
৩। বহেরার ফলের খোসা পানি দিয়ে ভালো ভাবে মসৃণ করে বাটুন। মিশ্রণটি
   ১ কাপ পানিতে গুলে সেই পানি ছেঁকে নিন। সেই পানি দিয়ে নিয়মিত চুল
   ধুলে চুল কাল হবে। চুল পাকা বন্ধ হবে।
৪। বহেরার বিচির শাঁস অল্প পানিতে মিহি করে বেটে টাকে লাগালে নতুন চুল গজাবে।
৫। শরীরের কোন স্থান ফুলে গেলে বহেরার ছাল বেটে গরম করে ফুলো জায়গায় প্রলেপ
   দিলে ফুলো কমে যাবে।

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৩

জাম

জাম
১। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য জাম খুব উপকারী।
২। ডায়রিয়ার জন্য জাম খুব উপকারী।
৩। রাতকানা রোগীর জন্য জাম উপকারী।
৪। জাম আমাদের শরীরের রক্ত পরিস্কার করে। 
৫। জামের রস দেহের ভেররে জীবানুকে মেরে ফেলেন। 
৬। চোখের ইনফেকশনজনিত সমস্যায় জাম খুব উপকারী।
৭। কেটে গেলে বা ছিলে গেলে জামের পাতার রস লাগালে রক্ত বন্ধ হবে। 
৮। কয়েকদিন কোচি জাম পাতার রস ২-৩ চামচ হালকা গরম করে খেলে
   রক্ত আমাশয় ভল হয়।
   





বুধবার, ১৭ জুলাই, ২০১৩

ডালিম

ডালিম
১। ডালিম খেলে কোষ্ঠ পরিস্কার হয়।
২। ডালিমে ভিটামিন সি, আঁশ, পটাশিয়াম, ফসফরাস, জিংক ও ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে।
৩। ডালিম ভাইরাস প্রতিরোধ করে।  
৪। ডালিম বদহজম দূর করে।
৫। সর্দি-কাশি হোলে ডালিম খেলে ভালো হয়।
৬। ডালিম দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
৭। ডালিম ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।
৮। ফিতাক্রিমির জন্য ডালিমের মূলের শুকনা ছাল এবং কাণ্ড বিশেষ উপকারী। 
৯। ডালিমের খোসা ডায়রিয়ার জন্য উপকারী।

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই, ২০১৩

ছোলা

ছোলা
১। ছোলাতে আমিষের পরিমান মাছ বা মাংসের আমিষের পরিমানের প্রায় সমান।
২। ডায়বেটিস রোগীর জন্য ছোলার শর্করা খুব উপকারী।
৩। ছোলা কোষ্ঠকাঠিন্যর রোগীদের জন্য উপকারী। 
৪। ছোলা রক্তের চর্বি কমাতে সাহায্য করে।
৫। ছোলা কান্সার প্রতিরোধ করে।
৬। ছোলা দীর্ঘক্ষণ  ধরে শরীরে শক্তি যোগান দিতে থাকে।
৭। ছোলা সহজে হজম হয়।
৮। ছোলার ডাল বেঁটে মুখে লাগালে ব্রনের উপকার হয়।
   মুখের কাল দাগ দূর হয়। রং উজ্জ্বল হয়।